সন্ধ্যাতারা সিরিয়াল আজকের পর্ব (২৮ ডিসেম্বর, ২০২৩)

পর্বের সংক্ষিপ্তসার:

সন্ধ্যাতারা সিরিয়াল আজকের পর্ব নয়নতারা পেত্নি দেখে ভয় পেয়েছে। সে সন্ধ্যার কাছে সাহায্য চায়। সন্ধ্যা পেত্নিকে ভয় দেখানোর জন্য ভূত সাজে। নয়নতারা ভূত দেখে ভয়ে চিৎকার করে উঠে। সন্ধ্যা পেত্নিকে তাড়িয়ে দেয়।

নীল সন্ধ্যার ভূত সাজ দেখে অবাক হয়। সে সন্ধ্যার কাছে জানতে চায় সে কেন ভূত সাজলো। সন্ধ্যা নীলকে বলে যে সে নয়নতারাকে পেত্নি থেকে বাঁচাতে ভূত সাজলো।

নীল সন্ধ্যার সাহস দেখে মুগ্ধ হয়। সে সন্ধ্যার প্রতি তার ভালোবাসা অনুভব করতে শুরু করে।

পর্বের মূল ঘটনা:

নয়নতারা রাতে ঘুমাতে যায়। হঠাৎ সে পেত্নি দেখে ভয় পেয়ে উঠে। সে সন্ধ্যার কাছে সাহায্য চায়।

সন্ধ্যা নয়নতারার ঘরে এসে দেখে নয়নতারা ভয়ে কাঁপছে। সে নয়নতারাকে শান্ত করে বলে যে সে পেত্নিকে তাড়িয়ে দেবে।

সন্ধ্যা তার রুমে গিয়ে ভূত সাজতে শুরু করে। সে তার মুখটা কালো করে, চোখ দুটো বড় করে, এবং মাথায় একটা কালো টুপি পরে।

সন্ধ্যা ভূত সাজতে শেষ করে নয়নতারার ঘরে ফিরে যায়। সে নয়নতারাকে বলে যে সে পেত্নি এসেছে।

নয়নতারা ভূত দেখে ভয়ে চিৎকার করে উঠে। সে বিছানার নিচে লুকিয়ে যায়।

সন্ধ্যা পেত্নির মতো নয়নতারার ঘরে ঘুরে বেড়াতে শুরু করে। নয়নতারা ভয়ে আরও বেশি চিৎকার করে।

নীল নয়নতারার চিৎকার শুনে তার ঘরে যায়। সে দেখে সন্ধ্যা ভূত সাজতেছে।

নীল সন্ধ্যার ভূত সাজ দেখে অবাক হয়। সে সন্ধ্যার কাছে জানতে চায় সে কেন ভূত সাজলো।

সন্ধ্যা নীলকে বলে যে সে নয়নতারাকে পেত্নি থেকে বাঁচাতে ভূত সাজলো।

নীল সন্ধ্যার সাহস দেখে মুগ্ধ হয়। সে সন্ধ্যার প্রতি তার ভালোবাসা অনুভব করতে শুরু করে।

নীল সন্ধ্যার কাছে এসে বলে যে সে তাকে ভালোবাসে।

সন্ধ্যা নীলের কথা শুনে অবাক হয়। সে নীলকে বলে যে সেও তাকে ভালোবাসে।

নীল এবং সন্ধ্যা একে অপরের হাত ধরে। তারা দুজনে একে অপরের প্রতি তাদের ভালোবাসা প্রকাশ করে।

পর্বের সমাপ্তি:

নীল এবং সন্ধ্যা একে অপরের প্রতি তাদের ভালোবাসা প্রকাশ করে। তারা দুজনে একে অপরের হাত ধরে। তারা দুজনে একসাথে সুখে শান্তিতে বসবাস করতে শুরু করে।

পর্বের মূল বিষয়:

এই পর্বে, সন্ধ্যা তার বোন নয়নতারাকে পেত্নি থেকে বাঁচাতে ভূত সাজতে রাজি হয়। তার সাহস দেখে নীল তার প্রতি ভালোবাসা অনুভব করতে শুরু করে। অবশেষে, তারা দুজনে একে অপরের প্রতি তাদের ভালোবাসা প্রকাশ করে।

Rate this post

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *